Registration

ভয়ংকর টিয়া

noimage
View : 150 Views
Post on: Jul 29, 2017 , Sat
Rate This:
Rate this post

ভয়ংকর টিয়া

লাইকবিডি ডেস্ক: টিয়া হলো এমন একটি পাখি যা পোষার জন্য আমাদের পছন্দের তালিকায় প্রথমেই যে পাখিগুলো থাকে তার মধ্যে একটি। দেখতে সুন্দর এবং নিরীহ এই পাখিটি যে ভয়ংকর হতে পারে তা কখনো ভাবা যায়! কিন্তু নিউজিল্যান্ডে এক ধরনের টিয়া পাখি রয়েছে যা ভয়ংকর এবং মাংসাশী।

স্যার ডেভিড এটেনবোর এবং বিবিসির চিত্রগ্রাহক কিয়া নামের মাংসাশী এই টিয়ার খোঁজ পান এবং ভিডিও ধারণ করেন। সচরাচর  আমাদের দেখা আর দশটা সাধারণ টিয়া থেকে একটু আলাদা এই পাখিগুলো। এদের ঠোঁট ও খাদ্যাভ্যাস পুরোপুরি মাত্রায় ভিন্ন। সবুজ ও ধূসর বাদামি বর্ণের এই টিয়া একটু বড় আকৃতির হয়ে থাকে, প্রায় ৪৮ সেন্টিসিটার লম্বা।

কিয়া নামের বিরল এই পাহাড়ি টিয়া পাওয়া যায় শুধু নিউজিল্যান্ডের দক্ষিণে আল্পাইন অঞ্চলে। বিশ্বের একমাত্র মাংসাশী এই টিয়া, পাখি প্রেমীদের আকর্ষণের বস্তু যাদের দেখতে সারা পৃথিবী থেকে পর্যটক ছুটে যান নিউজিল্যান্ডে। বিরল এই পাখিরা মূলত এদের বুদ্ধিমত্তা ও কৌতূহলী বৈশিষ্ট্যের কারণে পরিচিত।

সমুদ্রতীর বা পাহাড়ি গর্তে এদের কলোনি গড়ে ওঠে। আর মাটির গর্তে বেড়ে উঠতে থাকে তুলতুলে ও মাংসল ছানারা। বন্য এই টিয়া পাখিরা মূলত দল বেঁধে নির্দিষ্ট এলাকায় কলোনি আকারে একসাথে বাস করে। সাধারণত এরা বন্য ইঁদুর বা পোকামাকড় খাবার হিসেবে প্রথম পছন্দ। কিন্তু মৌসুম পরিবর্তনের সাথে সাথে যখন খাদ্যের সংকট শুরু হয় তক্ষুনি এদের হিংস্রতা চরম আকার ধারণ করে। তখন কলোনির ছানারা হয়ে পরে এদের মূল লক্ষ্য। এই প্রজাতির পূর্ণ বয়স্ক টিয়ারা যখন খাবারের খোঁজে সমুদ্রে মাছ শিকারে ব্যস্ত ঠিক তখনই খাবারের অন্বেষণে কিছু টিয়ার দল অন্য টিয়ার ছানাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

নিমিষেই এদের ধারালো, তীক্ষ্ণ ঠোঁট ছিঁড়ে ফেলতে পারে যেকোনো কিছু। শব্দ অনুসরণ করে খুঁজে নেয় এরা কোন গর্তে ছানারা মা পাখি বিহীন একা রয়েছে। কখনো কখনো মাংসের লোভে এদের মাটির গর্ত খুঁড়তে হয় কারণ এদের কলোনির বাসাগুলো মাটির বেশ গভীরে হয়। এক পর্যায়ে, ব্লেডের ন্যায় ধারালো ঠোঁট দিয়ে টেনে বেড় করে নিজ প্রজাতির ছানা আর দলবেঁধে চলে ভক্ষণ উৎসব। এছাড়া এ টিয়াগুলো এতটাই হিংস্র যে, মাঝে মাঝে জীবন্ত প্রাণীদের দেহে কামড়ে মাংস ভক্ষণের চেষ্টা করে।

BB Links

  • Link :
  • HTML Link:
  • BBcode Link:

About Author (4068)


Administrator
Tags:

Leave a Reply