মাদ্রাসায় না পড়ে কি কাউকে ইসলামী শিক্ষা দেওয়া যাবে?

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’।

জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

বিশেষ আপনার জিজ্ঞাসার ৫০০তম পর্বে মাদ্রাসায় পড়াশোনা না করে শুধু হাদিস পড়ে মানুষকে ধর্মের জ্ঞান দেওয়া যাবে কি না, সে সম্পর্কে টেলিফোনে রাজশাহী থেকে জানতে চেয়েছেন লায়লা। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : আমি বুখারি শরিফ পড়ার চেষ্টা করি। সহিহ হাদিসগুলো জানার চেষ্টা করি। কেউ প্রশ্ন করলে বা ভুল করলে আমি যে সহিহ হাদিসগুলো জানি, তার আলোকে তাদের বলার চেষ্টা করি, এটা এভাবে করেন, ওভাবে বোধ হয় ঠিক না, হাদিসে এ রকম আছে। আমার তো আসলে এ রকম পড়াশোনা নেই যে আমি আলেম ডিগ্রি নিয়েছি বা মাদ্রাসায় পড়েছি। আমি নিজে পড়াশোনা করেই জানার চেষ্টা করি। আমাকে কেউ কখনো যদি প্রশ্ন করে, সে বিষয়ে উত্তর দেওয়া কি আমার জন্য সঠিক হবে?

উত্তর : কোনো বিষয় সম্পর্কে যখন আপনার জানা আছে, আপনি হাদিসের আলোকে জানতে পেরেছেন, তখন আপনার জন্য জায়েজ রয়েছে ওই সুনির্দিষ্ট বিষয়ে। যেহেতু আপনার জানা আছে, সেহেতু ওই সুনির্দিষ্ট বিষয়ে আপনি কাউকে দিকনির্দেশনা দিতে পারেন।

সে ক্ষেত্রে আপনি তো নিজের কথা বলছেন না, সহিহ হাদিস থেকে উদ্ধৃতি দিচ্ছেন। সুতরাং এটা আপনার জন্য জায়েজ আছে, নাজায়েজ নয়। এর জন্য শর্ত নয় যে সমস্ত বিষয়ে জ্ঞানী হতে হবে।

যে বিষয়ে আপনি জানলেন, সে বিষয়ে আপনি জ্ঞান দিতে পারেন। একটি আয়াত বা হাদিস জানলে সেটাও অন্যের কাছে পৌঁছানোর বিষয়টি হাদিস দ্বারা সাব্যস্ত হয়েছে। মোটকথা, যেহেতু আপনি জানেন, আপনি বলতে পারেন। এতে কোনো অসুবিধা নেই।

সূত্রঃ এনটিভি

About the Author

Hasan
I Love likebd.com

Be the first to comment on "মাদ্রাসায় না পড়ে কি কাউকে ইসলামী শিক্ষা দেওয়া যাবে?"

Leave a comment

Skip to toolbar