Likebd.com

হার মেনেছে প্রতিবন্ধকতা

নাটোর প্রতিনিধি: এক পায়ে ভর দিয়ে ক্রিকেট খেলেন। আরেক পা নাই তার। কারণ প্রতিবন্ধী তিনি। তবু এক পায়ে ভর করেই মোকাবেলা করছেন প্রতিদ্বন্দ্বী খেলোয়াড়দের। ব্যাটিং, কিপিংয়েও তিনি অন্যদের সাথে তাল মিলিয়ে যাচ্ছেন অনায়াসে। বিভিন্ন টুর্নামেন্টে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হয়েছেন অসংখ্যবার। হয়েছেন ম্যান অফ দ্য টুর্নামেন্টও। এক পা নেই তাতে কী? তাই বলে ক্রিকেটার হবার […]

নাটোর প্রতিনিধি: এক পায়ে ভর দিয়ে ক্রিকেট খেলেন। আরেক পা নাই তার। কারণ প্রতিবন্ধী তিনি। তবু এক পায়ে ভর করেই মোকাবেলা করছেন প্রতিদ্বন্দ্বী খেলোয়াড়দের। ব্যাটিং, কিপিংয়েও তিনি অন্যদের সাথে তাল মিলিয়ে যাচ্ছেন অনায়াসে। বিভিন্ন টুর্নামেন্টে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হয়েছেন অসংখ্যবার। হয়েছেন ম্যান অফ দ্য টুর্নামেন্টও।

এক পা নেই তাতে কী? তাই বলে ক্রিকেটার হবার স্বপ্ন ভেঙ্গে যাবে এমন তো কথা নেই। মনোবল তো হারায়নি। এমন ইস্পাত কঠিন মনোবল যার, তাকে হারানোর সাধ্য কার?

এই মহাকাব্যের নায়ক সারোয়ার হোসেন সাদ্দাম। বাড়ি নাটোরের সদর উপজেলার জংলী গ্রামে। বাবা মৃত আ. রউফ পাঠান। পাঁচ ভাই দুই বোনের মধ্যে সাদ্দাম চতুর্থ। আট বছরের এক কন্যা রয়েছে তার।

গ্রামের জংলী মোড়ে ছোট্ট একটি দোকানে মোবাইল সামগ্রী বিক্রি করে সংসার চলে তার। সারাদিন যা উপার্জন তাই দিয়েই সংসারের খরচ বহন করেন সাদ্দাম। অবসর সময়ে ক্রিকেট খেলে সময় কাটে তার।  

                                                    

এবার স্থানীয় জংলী ইসলামিয়া দলের হয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত তৃতীয় বিভাগ ক্রিকেট লীগে অংশ নেন তিনি।

সাদ্দামের স্ত্রী নাজমা বেগম বলেন, অন্য সবার মতো সাদ্দামেরও দুই পা ছিল। বিয়ের তিন মাসের মাথায় পাওয়ারটিলার উল্টে একটি পা হারান তিনি। বিয়ের পরও তিনি এক পা দিয়ে একাধিক টুর্নামেন্ট খেলেছেন। দৃঢ় মনোবলের কারণে তিনি এখনও এক পায়ে ক্রিকেট খেলে যাচ্ছেন।

সাদ্দামের প্রতিপক্ষ দলের অধিনায়ক রিয়াজুল হোসেন বলেন, ‘একজন স্বাভাবিক খেলোয়াড়ের সঙ্গে সাদ্দাম সমানতালে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন এবং প্রতিটি বলে রান নেয়ার ক্ষমতা রাখেন তিনি।’

জেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল কোচ বাবুল আখতার বলেন,‘ এক পায়ে ক্রিকেট খেলা কোনো স্বাভাবিক মানুষের পক্ষে সম্ভব না হলেও সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন সাদ্দাম। সুযোগ দেয়া হলে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা নিয়েও ছেলেটি দেশ ও নাটোরের জন্য সুনাম বয়ে আনবে।’

সাদ্দাম বলেন, ‘ক্রিকেটার হবার স্বপ্নই আমায় বাঁচিয়ে রেখেছে। দেশের প্রতিবন্ধী দলের হয়ে খেলতে চাই। স্বপ্ন দেখি একদিন দেশ ও জেলার জন্য সুনাম বয়ে আনব।’

নাটোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোস্তাক আলী মুকুল বলেন, ‘এক পায়ে ভর করে ক্রিকেট খেলতে যে শারীরিক ও মানসিক একাগ্রতা লাগে তা সাদ্দামের রয়েছে। ভবিষ্যতে জেলা ক্রীড়া সংস্থা সাদ্দামের পাশে থাকবে।’

Originally posted 2017-07-30 03:03:14.

Hasan

I Love likebd.com

2 comments

Categories

June 2020
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  
June 2020
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930