Likebd.com

বর্ষবরণের জোর প্রস্তুতি শুরু ‘চট্টগ্রামে’

কে.এম জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: দুয়ারে কড়া নাড়ছে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। নতুন পোশাক কেনা, ব্যবসায়ীদের হালখাতার প্রস্তুতি, মেলা এবং বর্ণিল মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে বর্ষবরণের প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। যার যার সাধ্যমত নগরবাসী প্রস্তুতি নিচ্ছেন বৈশাখের প্রথম দিনটিকে বরণ করে নেয়ার জন্য। আর মাত্র কয়েক দিনের অপেক্ষা।প্রতিবছরের ন্যায় এবারও নগরীতে বৈশাখের প্রথম প্রহরে বর্ণিল […]

কে.এম জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: দুয়ারে কড়া নাড়ছে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। নতুন পোশাক কেনা, ব্যবসায়ীদের হালখাতার প্রস্তুতি, মেলা এবং বর্ণিল মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে বর্ষবরণের প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। যার যার সাধ্যমত নগরবাসী প্রস্তুতি নিচ্ছেন বৈশাখের প্রথম দিনটিকে বরণ করে নেয়ার জন্য। আর মাত্র কয়েক দিনের অপেক্ষা।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও নগরীতে বৈশাখের প্রথম প্রহরে বর্ণিল মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করবেন চট্টগ্রাম চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা। এ লক্ষ্যে তারা নাওয়া-খাওয়া বাদ দিয়ে ক্যাম্পাসে দিনরাত কাজ করছেন। তাদের যেন দম ফেলার ফুরসতও নেই।

সকালে চারুকলা ইনস্টিটিউটে গিয়ে দেখা যায়, বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও চলছে বৈশাখের প্রস্তুতি। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরণের ফেস্টুন, কাগজের হাতি, ঘোড়া, মাটির তৈজসপত্রে বিভিন্ন ধরণের আলপনা ও নানা রঙের ব্যানার, প্ল্যাকার্ড বানাতে ব্যস্ত।

চারুকলার এক শিক্ষার্থী বিভিলাইভটোয়েন্টিফোরকে বলেন, পহেলা বৈশাখের প্রস্তুতিতে আমরা কোন ফাঁক রাখতে চাই না। সবাই নিজের সেরাটা দিয়েই কাজ করছে। আশা করছি এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রা গতবারের চেয়েও বর্ণিল ও আকর্ষণীয় হবে।

এদিকে পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে নগরীর অভিজাত বিপণি বিতান, মার্কেট শপিংমল থেকে শুরু করে ফুটপাতগুলোও ছেয়ে গেছে বর্ণিল ও রকমারি বৈশাখী পোশাকে।

বিপণি বিতান ও বুটিক হাউজ দেখা গেছে, বৈশাখী শাড়ি, সালোয়ার কামিজ, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, ফতুয়া, কুর্তা, কুর্তি ইত্যাদি পোশাকের প্রাধান্য। এসব পোশাকের মধ্যে আবার লাল-সাদা রঙের প্রাধান্য বেশি। অন্যান্য রঙেরও আছে। দামও হাতের নাগালে। পাশাপাশি সরগরম হয়ে উঠেছে অনলাইন ও ফেসবুক ভিত্তিক শপিং সাইটগুলোও।

অনলাইন শপ এনজেলিক রোজের স্বত্বাধিকারী শাহনাজ আফরোজ সুমি বলেন, এবার পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে অনেক অর্ডার পেয়েছি। তাই দিন-রাত কাজ করতে হচ্ছে। সঠিক সময়ে ক্রেতার কাছে তার পণ্যটি পৌঁছে দিতে পারলেই আমাদের সন্তুষ্টি।

নববর্ষের আরেক আকর্ষণ শুভেচ্ছা কার্ড ও ক্যালেন্ডার। প্রিয়জনকে শুধু কার্ড বা ক্যালেন্ডার দিলেই তো আর হলো না সাথে থাকা চাই নান্দনিকতা। তাই বছরের এ সময়ে এ সব প্রকাশনার কারিগরদের যেন দম ফেলারও ফুরসত মেলে না। নগরীর প্রেসপাড়া খ্যাত আন্দরকিল্লায়ও এখন তাই রাজ্যের ব্যস্ততা। হাজারো শ্রমিক প্রতিদিন দিনরাত একটানা কাজ করে যাচ্ছেন। আধুনিক মেশিনে নানা ডিজাইনে তৈরি হচ্ছে ক্যালেন্ডার, ডায়েরি ও শুভেচ্ছা কার্ড।

অতীতে হালখাতা পহেলা বৈশাখের অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে বিবেচিত হলেও বর্তমানে এ রীতিটি যেন অনেকটাই হারিয়ে যেতে বসেছে। তবে অনেক ব্যবসায়ী এখনো বছরের প্রথম দিনে হালখাতা খোলার রেওয়াজ চালু রেখেছেন। এদিন ব্যবসায়ীরা তাদের গ্রাহকদের মিষ্টি মুখ করিয়ে নতুন হিসাবের খাতা খোলেন। ইতিমধ্যেই হালখাতার প্রস্তুতি শুরু করেছেন নগরীর হাজারী গলি, চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ এলাকার ব্যবসায়ীরা।

হাজারী গলির স্বর্ণ ব্যবসায়ী মানিক পাল জানান, আমরা হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী বর্ষবরণ উৎসব করে থাকি। তাই আমাদের পয়লা বৈশাখ একদিন পরে হয়। আমরা এই দিনে শিব ও চড়ক পূজা করি।

খাতুনগঞ্জের চাল ব্যবসায়ী মো. হালিম বলেন, আমরা ৪০ বছর ধরে এ এলাকায় চালের ব্যবসা করে আসছি। পহেলা বৈশাখে সবকিছু ধুয়ে মুছে, পুরোনো লেনদেন ঘুচিয়ে নতুন করে নতুন বছরের ব্যবসা শুরু করি। তিনি বলেন, হালখাতায় সব গ্রাহক যে টাকা পরিশোধ করতে পারেন এমন না। আমরা কাউকেই টাকা পরিশোধ করতে চাপ দিই না। টাকা দিতে পারুক আর নাই পারুক, বছরের শুরুর দিনে ক্রেতা-বিক্রেতা একত্রে বসে মিষ্টি মুখ করতে পারাটাই অনেক আনন্দের।

Originally posted 2017-07-30 03:03:10.

Hasan

I Love likebd.com

Add comment

Categories

June 2020
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  
June 2020
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930