প্রশ্ন ফাঁসের গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

ব্রেকিং নিউজ Jan 20, 2019 2388 Views
Googleplus Pint

গৃহীত পদক্ষেপের
ফলে প্রশ্নপত্র আর ফাঁস করা সম্ভব হবে না
বলে আশা করছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল
ইসলাম নাহিদ। এ প্রেক্ষাপটে তিনি শিক্ষার্থী
ও অভিভাবকদের প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজবে
কান না দেওয়ার আহ্বান জানান।
আজ সোমবার এসএসসি ও সমমানের
পরীক্ষা শুরুর দিনে রাজধানীর তেজগাঁও
সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন
শেষে সাংবাদিকের এসব কথা বলেন
শিক্ষামন্ত্রী।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী
বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে কঠোর
নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রশ্নপত্র
ফাঁসের কোনো সুযোগ নেই। আমরা
বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থায় এবার প্রশ্নপত্র
পৌঁছে দিচ্ছি। যারা প্রশ্ন তৈরি ও সরবরাহ
করছেন, তাদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে।
আশা করি আর প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না।’
তিনি আরো বলেন, ‘একবারই প্রশ্নপত্র ফাঁস
হয়েছে। সেবার আমরা পরীক্ষা স্থগিত
করেছি। আরেকবার ফাঁসের গুজব উঠেছিল।
পরীক্ষার মাঝে বিরতি থাকায় আমরা পরীক্ষার
প্রশ্ন পরিবর্তন করেছি। এখন আমরা কয়েক
সেট প্রশ্ন তৈরি করি। এমনভাবে প্রক্রিয়াকরণ
করা হয় যে সংশ্লিষ্ট কারো পক্ষে বোঝা
সম্ভব না যে কোন প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা
হবে।’
তিনি বলেন, ‘ফেসবুকে বা অন্য
কোনোভাবে এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের
কোনো সম্ভাবনা নেই। ছেলে-
মেয়েরা হাসি মুখে পরীক্ষা দিচ্ছে। কেউ
কারো দিকে তাকাচ্ছে না, যে যার মতো
করে পরীক্ষা উত্তরপত্র ভরাট করছে।’
নাহিদ বলেন, ‘ফেসবুকে প্রশ্নপত্র ফাঁস
নিয়ে কেউ লিখলে তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ
টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন
(বিটিআরসি) ব্যবস্থা নেবে।’
সোমবার সকাল ১০টায় সারাদেশে ৩,১৪৩টি
কেন্দ্রে একযোগে এসএসসি ও
সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। প্রথম দিন
এসএসসিতে বাংলা (আবশ্যিক) প্রথম পত্র, সহজ
বাংলা প্রথম পত্র এবং বাংলা ভাষা ও বাংলাদেশের
সংস্কৃতি প্রথম পত্রের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত
হচ্ছে।
আর মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিলে
কুরআন মাজিদ ও তাজবীদ এবং এসএসসি
ভোকেশনালে বাংলা-২ (১৯২১) (সৃজনশীল)
ও বাংলা-২ (৮১২১) (সৃজনশীল) ও দাখিল
ভোকেশনালে বাংলা-২ (১৭২১) (সৃজনশীল)
পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের
পরীক্ষায় আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডসহ ১০টি
বোর্ডে নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলে মোট
পরীক্ষার্থী ১৬ লাখ ৫১,৫২৩ জন।
এবার এসএসসি পরীক্ষায় বহুনির্বাচনী
(এমসিকিউ) অংশের পরীক্ষা আগে হচ্ছে।
পরে হচ্ছে সৃজনশীল অংশের পরীক্ষা।
দুই অংশের পরীক্ষার মাঝে ১০ মিনিট
সময়ের ব্যবধান থাকছে। এতদিন সৃজনশীল
অংশ আগে হতো, পরে এমসিকিউ অংশ
হতো।
ঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী এসএসসির
তত্ত্বীয় পরীক্ষা আগামী ৮ মার্চ শেষ
হবে। আর ব্যবহারিক পরীক্ষা ৯ মার্চ
থেকে শুরু হয়ে ১৪ মার্চ শেষ হবে।

Originally posted 2016-02-01 15:47:21.

BB Links

  • Link :
  • Link+title :
  • HTML Link:
  • BBcode Link:
Googleplus Pint
Md Shoriful Islam (71)
Author
User ID: 1482

Comments