ঘুরে আসতে পারেন মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত থেকে

লাইফস্টাইল Nov 07, 2019 922 Views
Googleplus Pint
noimage

লাইকবিডি রিপোর্ট: জলরাশি যেখানে পড়ছে তার চতুর্দিকে পাহাড়, নিচে কুণ্ড। কুণ্ডের মধ্যভাগে অনবরত পানি পড়ছে। এই স্থান অনেক গভীর। কুণ্ডের ডান পাশে একটি পাথরের গহ্বর বা গুহার সৃষ্টি হয়েছে। বলছিলাম মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতের কথা। ১৩৪২ সালে বিষ্ণুদাস সন্ন্যাসী মাধবকুণ্ডের পশ্চিমাংশে কমলা বাগান তৈরি করেন, সেই কমলা বাগান আজও রয়েছে।

দেশের একমাত্র জলপ্রপাত মাধবকুণ্ড
তবে এর বিপরীত মতও রয়েছে। মহাদেব বা শিবের পূর্বনাম মাধব এবং এর নামানুসারে তার আবির্ভাব স্থানের নাম মাধবকুণ্ড। এ কুণ্ডের পাশেই স্থাপন করা হয়েছে শিবমন্দির। যে পাহাড়টির গা বেয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছে এ পাহাড়টি সম্পূর্ণ পাথরের। এর বৃহৎ অংশজুড়ে রয়েছে ছড়া। ছড়ার উপরের অংশের নাম গঙ্গামারা ছড়া আর নিচের অংশের নাম মাধবছড়া। পাহাড়ের উপর থেকে পাথরের ওপর দিয়ে ছুটে আসা পানির স্রোত দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে হঠাৎ খাড়াভাবে উঁচু পাহাড় থেকে একেবারে নিচে পড়ে যায়। এতে দুটি ধারা সৃষ্টি হয়। একটি বড়, একটি ছোট। বর্ষাকালে ধারা দুটি মিশে যায়।

মূল জলপ্রপাতের বাম পাশে প্রায় ২০০ গজ দূরে আরও একটি পরিকুণ্ড নামের জলপ্রপাতের সৃষ্টি হয়েছে। সেখান থেকেও অনবরত পানি পড়ছে। কিন্তু সেখানে যাওয়াটা খুবই কষ্টকর। যাতায়াতের সুবিধা হলেও ওখানেও পর্যটকদের ভিড় বাড়বে।

যেভাবে যাবেন:
মৌলভীবাজার জেলার সীমান্তবর্তী থানা বড়লেখার ৮ নম্বর দক্ষিণভাগ ইউনিয়নের অধীন গৌরনগর মৌজার অন্তর্গত পাথারিয়া পাহাড়ের গায়ে এই জলপ্রপাতের স্রোতধারা বহমান। মাধবকুন্ড সিলেট সদর থেকে ৭২ কিলোমিটার, মৌলভীবাজার জেলা সদর থেকে ৭০ কিলোমিটার, কুলাউড়া রেলওয়েজংশন থেকে ৩২ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত। দেশের যে কোন জায়গা থেকে সড়ক পথে সরাসরি বাস নিয়ে  মাধবকুন্ডে যাওয়া যায়।

এছাড়া রেলপথেও সুবিধা আছে। ট্রেনে গেলে নামতে হবে কুলাউড়া স্টেশনে আর সেখান থেকে মাইক্রোবাস, অটোরিকশাযোগে যেতে হবে কাঠালতলীতে। কাঠালতলী থেকে আপনি রিক্সা, অটো রিক্সায় বা স্কুটারে মাধবকুন্ড যেতে পারবেন। আর মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলা শহর থেকে আপনি রিক্সা ভাড়া করেও মাধবকুন্ড যেতে পারেন। এজন্য আপনাকে ৭০ থেকে ৮০ টাকা ভাড়া গুনতে হবে। আর স্কুটার ভাড়া জনপ্রতি ৬০ থেকে ৭০ টাকা। অথবা আপনি মাইক্রোবাস বা সিএনজি রিজার্ভ করেও যেতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে ভাড়া বেশি গুনতে হবে।

কোথায় থাকবেন:
পর্যটকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশ পর্যটন করর্পোরেশন এখানে থাকা-খাওয়ার সুবিধার্থে একটি রেস্টুরেন্ট, রেস্টহাউস ও বসার জন্য কিছু শেড নির্মাণ করেছে। সেখানে পর্যটন কর্পোরেশনের ডাক বাংলোতে পূর্বানুমতি নিয়ে রাত যাপনের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া বড়লেখায়ও রয়েছে ভালো মানের হোটেল।

Originally posted 2017-07-27 03:31:03.

BB Links

  • Link :
  • Link+title :
  • HTML Link:
  • BBcode Link:
Googleplus Pint
Hasan (3071)
Administrator
User ID: 1
I Love likebd.com

Comments