কোমর ব্যথার কারণ ও চিকিৎসা

স্বাস্থ্যগত Oct 09, 2019 1516 Views
Googleplus Pint

লাইকবিডি ডেস্ক: কোমরের ব্যথা কমবেশি সব মানুষের হয়। এই ব্যথা যুবক থেকে বৃদ্ধ-সব বয়সেই হতে পারে। গবেষণায় বলা হয়, বিশ্বের ৭০ থেকে ৮০ ভাগ প্রাপ্তবয়স্ক লোক জীবনে কখনো না কখনো এ ব্যথায় আক্রান্ত হয়। শুরু থেকে কোমরের ব্যথা নির্মূল করতে না পারলে রোগীকে ভবিষ্যতে বিভিন্ন সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়।

কারণ

লাম্বার স্পনডোলাইসিস
কোমরের পাঁচটি হাড় আছে। কোমরের হাড়গুলো যদি বয়সের কারণে বা বংশগত কারণে ক্ষয় হয়ে যায়, তখন তাকে লাম্বার স্পনডোলাইসিস বলে।

এলআইডি
এটিও শক্তিশালী একটি কারণ। এটি সাধারণত ২৫ থেকে ৪০ বছরের মানুষের ক্ষেত্রে বেশি হয়। মানুষের হাড়ের মধ্যে ফাঁকা জায়গা থাকে। এটি পূরণ থাকে তালের শাঁসের মতো ডিস্ক বা চাকতি দিয়ে। এই ডিস্ক যদি কোনো কারণে বের হয়ে যায়, তখন স্নায়ুমূলের ওপরে চাপ ফেলে। এর ফলে কোমরে ব্যথা হতে পারে।

নন-স্পেসিফিক লো বেক পেন
অনির্দিষ্ট কারণে হাড়, মাংসপেশি, স্নায়ু—তিনটি উপাদানের সামঞ্জস্য নষ্ট হলে এই ব্যথা হয়। এটি যুবকদের মধ্যে বেশি হয়। এই ব্যথা পুরোপুরি সারানোর চিকিৎসা এখনো আবিষ্কার হয়নি। এই ব্যথা নিয়ে বিশ্বব্যাপী গবেষণা চলছে।

এ ছাড়া বিভিন্ন কারণে কোমরে ব্যথা হয়। যেমন : শিরদাঁড়ায় টিউমার ও ইনফেকশন হলে কোমরে ব্যথা হতে পারে। মাংসপেশি শক্ত হয়ে গেলে বা মাংসপেশি দুর্বল হয়ে পড়লে কোমরে ব্যথা হয়। শরীরের ওজন বেড়ে যাওয়ার কারণেও কোমরে ব্যথা হয়। একটানা হাঁটলে বা দাঁড়িয়ে থাকলে, কোলে কিছু বহন করলেও কোমরে ব্যথা হতে পারে।

চিকিৎসা

# হালকা ব্যথা হলে ওষুধ এবং পূর্ণ বিশ্রাম নিতে হবে।

# কোমরের কিছু পরীক্ষা রয়েছে যেমন- ফরোয়ার্ড বন্ডিং পরীক্ষা, ব্যাকওয়ার্ড বন্ডিং পরীক্ষা। এছাড়া কোমরের এক্স-রে এবং এমআরআই করতে পারেন। রক্তের বিভিন্ন পরীক্ষা যেমন- ক্যালসিয়ামের পরীক্ষা, ইউরিক এসিডের পরিমাণ, শরীরে বাত আছে কি না-এসব পরীক্ষা করতে হয়। ক্রনিক ব্যাক পেইনের ক্ষেত্রে এইচএলএবি-২৭ পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী এসব পরীক্ষা করানো জরুরি।

# তীব্র ব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী হাসপাতালে ভর্তি থেকে ফিজিওথেরাপি নিতে হয়। এ ক্ষেত্রে তিন-চার সপ্তাহ পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি রাখা হতে পারে।

# আর কম ব্যথা হলে আউটডোর ফিজিওথেরাপি দেওয়া হয়ে থাকে।

# অনেকেই কোমর ব্যথা হলে বিভিন্ন ব্যথানাশক ওষুধ খেয়ে ফেলে। এটা একেবারে ঠিক নয়। বিভিন্ন কারণে কোমরে ব্যথা হতে পারে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করা প্রয়োজন।
 
# নিজের শরীরের ওজনের প্রতি লক্ষ্য করুন। আপনার শরীরের ওজন বৃদ্ধি পেলে আপনার কোমরের উপর চাপও বৃদ্ধি পাবে। ফলে আপনার কোমরে যদি আগে থেকে ব্যথা থেকে থাকে তবে তা আরো বৃদ্ধি পাবে। অতিরিক্ত ওজন কমানোর চেষ্টা করুন।

# আমাদের শরীরের বেশিরভাগ ওজনই থাকে পায়ের উপর, ফলে কোমরের সন্ধিস্থলের সাথে পায়ের সংযোগ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই আপনার শরীরের সাথে উপযুক্ত জুতো পড়ুন। এমন ধরণের জুতো ব্যবহার করা ঠিক নয় যা কোমরের উপর চাপ ফেলে। যুক্তরাষ্ট্রের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, হাইহিল ব্যবহার করা নারীরা সাধারণ জুতো ব্যবহার করা নারীদের চেয়ে বেশি কোমর ব্যথায় ভুগেন।

Originally posted 2017-07-25 06:03:54.

BB Links

  • Link :
  • Link+title :
  • HTML Link:
  • BBcode Link:
Googleplus Pint
Hasan (3086)
Administrator
User ID: 1
I Love likebd.com

Comments