Home / বিবিধ / `দাবানল’ কাব্যগ্রন্থ থেকে ৬ দ্রোহের কবিতা

`দাবানল’ কাব্যগ্রন্থ থেকে ৬ দ্রোহের কবিতা

লাইকবিডি ডেস্ক: `অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৬’- তে প্রকাশিত তরুণ কবি ফয়সাল হাবিব সানি’র `দাবানল’ কাব্যগ্রন্থ থেকে ৬ দ্রোহের কবিতা:

১. কলম

হে, আমার কলম তুমি যেও না থেমে;
কবিতার পাতায় বিদ্রোহ হয়ে এসো আজ নেমে।
তোমার কালিতে যেন জ্বলে ওঠে আজ বিদ্রোহের অগ্নিশিখা,
জালিমদের মৃত্যু তোমার কালিতে থাকে যেন আজ লেখা।
লেখা থাকে যেন তোমার কালিতে সাম্যের কবিতাখানি,
যেন থাকে লেখা তোমার কালিতে তারুণ্যের মহাবাণী।
কলম তুমি থেমে যেও না, চলতে আবার লাগো…
দানব-দাজ্জাল যে যেখানে বিশ্ব থেকে ভাগো।

২. যুদ্ধ, অামি ক্ষুব্ধ

অাজও ধরণীতে তাণ্ডব! দামামা!! শান্তি চারিদিকে রুদ্ধ
মরণ! মরণ!! খেলাতে অাজ বিশ্বরাঙা— যুদ্ধ।
অাজও মানুষ ধ্বংসতৃষায় জীবন করেছে বদ্ধ,
জীবন অাজও নিদারুণ অসহায় তামাম জমিন মধ্য।
অাজও শুনি অামি মৃত্যুর ধ্বনি; বাতাসে বারুদের গন্ধ…
অাজও দেখি অামি পুরো পৃথিবী বোমার ধোঁয়ায় অন্ধ!
অাজও মানুষের বিবেক হলো না, বিস্ময় জাগে বুকে!
রক্ত অাজ ঢেলে দাও তবে, পিপাসু পৃথিবীর মুখে!!
যুদ্ধ যদি করতে হয়, তবে করো জীবনের সাথে যুদ্ধ,
জীবনযুদ্ধে, অালোর রোদ্দে করো রে তাঁহা শুদ্ধ।
যুদ্ধ, অামি ক্ষুব্ধ; তবু, তোমার হাঙ্গামা থামলো না…
ক্ষুব্ধ অামার মানুষসত্তা, কেউ তা জানলো না!

৩. অগ্নিশিখা জ্বালো

পৃথ্বী মাঝে অর্য তুমি, চক্ষে তোমার অালো
অামি বলি, বক্ষে তোমার অগ্নিশিখা জ্বালো।
পোঁড়াও তোমার কুরিপু অাজ, জ্বালাও তোমার মন
অামি দেখি, বক্ষে তোমার যুগের অান্দোলন।
চুরমার করো বিবেক তোমার, ছারখার করো তমা!
মানুষবেশী শূয়োর-জানোয়ার পায় না’কো যেন ক্ষমা।
অবাক ধরণী! অামি তো জানি স্যালুট করে গো তোমায়,
ক্ষুব্ধ অামি অাজকে অাজও বিশ্ব কাঁপে বোমায়!!

৪. মহাকাব্য

হে, মহাকাব্য!
অার কতোকাল নীরব থাকব?
কতোকাল অার সন্ত্রস্ততায়,
কালের নিঃসঙ্গতায়,
ধ্বংসখেলা হবে পক্ত!
অারও কতো মানুষ মরবে,
অকাতরে ঝরবে রক্ত!!
অারও কতো যুদ্ধ, অারও কতো
দানবের কালো নখড়ের হিংস্রতা;
হে, মহাকাব্য! উত্তর কি দেবে তা?

তবু, মহাকাব্য!
অাজ শুধু হাঁসব;
তুমি হয়ে উঠো অাজ এই বিশ্বমাঝ
বিদ্রোহী এক বর্ম,
`অাজ মৃত্যু, নয়তো জন্ম’।

৫. নববার্তা

চারিদিকে জুলুম! ধ্বংস!! দাঙ্গা!!! রুখবে এসব কে?
মায়ের গর্ভ ছেড়ে অাজ পৃথিবীতে অাসছে যেঁ।
তাঁর দিকে অাজ অাগামী চেয়ে, ধরিবে হাল বুঝি
তাঁর মাঝে অামি যে অাজ চেতনার স্বপ্ন খুঁজি।
হুঙ্কারিত অঙ্গনে, কালের প্রাঙ্গনে অাজও যুদ্ধের বার্তা শুনি…
অাজকের নবজাতকের মাঝখানে অামি নতুন বিস্ময় বুনি।
অার নয় রক্ত, অার নয় হাঙ্গামা; ধ্বংসখেলা হোক রিক্ত—
নবপ্লাবনের জোয়ারে অাজ জাগ্রত হোক চিত্ত।
তাই মুছে যাক কালের বিভৎস্য ইতিহাস, থেমে যাক শকুনের থাবা।
`যেঁ শিশু জন্ম নিলো অাজ, সেঁ-ই অাগামীর বাবা’।।

৬. জাগো হে, তারুণ্য

জাগো হে, তারুণ্য!
জাগো অাজ সমস্বরে…
নেমে পড়ো বিদ্রোহে পৃথবীর ‘পরে।
জাতি অাজ লজ্জিত, চারিদিকে শুধু লজ্জা!
অাজ গায়ের পশম রুখে দাঁড়াক, কাঁপুক অস্থিমজ্জা।
যুদ্ধের কোলাহলে, বিবেকের কল্লোলে উঠো অাজ জেগে
ঝাঁপিয়ে পড়ো তুফান হয়ে অাঁধার মত্ত মেঘে।
ছিঁড়ে ফেলো যতো শৃঙ্খল-বাধা, লঙ্ঘিয়ে যাও রাত্রি
হে, অামার তারুণ্য! মৃত্যু অভিযাত্রী।
জাগো হে, তারুণ্য!
অাজ জাগ্রত করো চেতন,
তোমার রক্তে উড্ডীন হোক ধর্ষিত পৃথিবীর কেতন।

Share With

About Hasan

LIkebd Is best place where you share your knowledge. So I want to change this.

Check Also

রাতের পর রাত স্বামীর রক্তপানের অভিযোগ স্ত্রীর বিরুদ্ধে

বিডিলাইভ ডেস্ক: ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূম জেলায় এক মহিলার বিরুদ্ধে স্বামীর রক্তপানের অভিযোগ উঠেছে।স্থানীয়দের অভিযোগ, জেলার সদাইপুর থানা এলাকার অভিজিৎ বাগদির (২২) স্ত্রী সাবিত্রী বাগদি (১৮) সাধনার নামে নিয়মিত স্বামীর বুকের উপর উঠে বসে রক্তপান করত।তাদের ঘরে এদিক-ওদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে মানুষের মাথার খুলি ও হাড়। এমনকী, সাবিত্রীকে প্রতিবেশীরা নগ্ন অবস্থায় বাড়ির চারপাশে ঘুরে বেড়াতে [...]

Leave a Reply